অল্প সময়ে সুনাম অর্জন করে গুণগত মানে দেশ ব্যাপী আলোড়ন সৃষ্টিকারী প্রতিষ্ঠান সিলেট ইউরো বাংলা সিরামিকস লিমিটেড

প্রকাশিত: ৬:০৯ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ২৪, ২০২১

অল্প সময়ে সুনাম অর্জন করে গুণগত মানে দেশ ব্যাপী আলোড়ন সৃষ্টিকারী প্রতিষ্ঠান  সিলেট ইউরো বাংলা সিরামিকস লিমিটেড

এম ইজাজুল হক ইজাজঃ
সিলেট সদর উপজেলার বাদাঘাট রোডে কেন্দ্রীয় কারাগার সংলগ্ন সোনাতলা এলাকায় গড়ে উঠে সিলেট বিভাগের একমাত্র সিরামিকস উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ইউরো বাংলা সিরামিকস লিমিটেড। ২০১৪ সাল থেকে ৫০ জন শ্রমিক নিয়ে যাত্রা শুরু ইউরো বাংলা সিরামিকস ফ্যাক্টরী’র। এভাবেই প্রতিষ্ঠানটি সাত বছর সুনামের সঙ্গে চলছে। অল্প সময়ে সুনাম অর্জন করে গুণগত মানে প্রতিষ্ঠানটি দেশ ব্যাপী এক নামে আলোড়ন সৃষ্টি করে । সিরামিকস এর চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় ২০০ শ্রমিক কাজ করে। শ্রমিকদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে আছে এ প্রতিষ্ঠান।
বিশ্বব্যাপী কোভিড-১৯-এর ক্ষতিকর পরিস্থিতির নিয়ে ইউরো বাংলা সিরামিকস লিমিটেড এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী দানশীল ও শালিস ব্যক্তিত্ব আলহাজ্ব মোঃ মঈন উদ্দিন তালুকদার এর সাথে একান্ত সাক্ষাতে তিনি বলেন, এলাকার মানুষের বেকারত্ব দূরীকরনের জন্য কিছু করার লালিত স্বপ্ন থেকে এই প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তুলি। ২০০ লোকের কর্মসংস্থান হয়েছে। যেভাবে দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছি আশা করি তাতে ভবিষ্যতে দুই হাজার লোকের কর্মসংস্থান করা সম্ভব হবে। কিন্তু হঠাৎ করেই বৈশ্বিক মহামারি করোনায় এই প্রতিষ্ঠানটি অর্থ সংকটে পড়ে যেন বন্ধ হয়ে না যায় সেদিকে আমরা চালিয়ে যা্িচছ। করোনা সংকটাপন্ন পরিস্থিতিতে এমন কঠিন সংকটময় অবস্থা থেকে ঘুরে দাঁড়াতে দীর্ঘ সময়ের প্রয়োজন। তাই মানব সভ্যতার শত বছরের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় সংকট মোকাবিলায় প্রয়োজন দৃষ্টান্তমূলক সাহসী সিদ্ধান্ত বলে মনে করেন ইউরো বাংলা লি. এর কর্তূপক্ষ। প্রতিষ্ঠানটির ম্যানেজিং আলহা্জ্ব মঈন উদ্দিন তালুকদার বলেন, দোকানপাট বন্ধ থাকায় তা উঠছে না। করোনা চলে গেলে এই দুঃসময় থাকবে না। আবারও ঘুরে দাঁড়াতে পারব বলে আমার বিশ্বাস। করোনাভাইরাস সংকট ফ্যাক্টরীর কতটা প্রভাব ফেলেছে, সেই চিত্র তুলে ধরেন তিনি। চাকরি হারিয়ে শ্রমিকরা যাতে বেকার হয়ে না পড়েন সে দিকে এম ডি আলহাজ¦ মঈন উদ্দিন তালুকদার খেয়াল রাখছেন পরিবার-পরিজন নিয়ে কষ্টে দিন যাপন যেন না করেন শ্রমিকরা। করোনার কারণে যেকোনো সময়ে সম্ভাবনাময় এই প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ হয়ে যেতে পারতো তবে মালিক পক্ষ কোটি কোটি টাকা ভর্তুকি দিয়ে চালিয়ে যাচ্ছেন।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

shares