জুনায়েদ মুন্সী’র দুই বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে বক্তারা //মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় এই গ্রন্থ পরবর্তী প্রজন্মের কাছে স্বরণীয় হয়ে থাকবে।

প্রকাশিত: ৫:১২ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ২১, ২০২২

জুনায়েদ মুন্সী’র দুই বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে বক্তারা  //মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় এই গ্রন্থ পরবর্তী প্রজন্মের কাছে স্বরণীয় হয়ে থাকবে।

সিলেটের নিউজ টুয়েন্টিফোরঃ
লেখালেখি মানুষ নিজের তাড়নায় করে। কেউ লেখেন সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে, কেউ লেখেন মনের আনন্দে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় এই গ্রন্থ পরবর্তী প্রজন্মের কাছে স্বরণীয় হয়ে থাকবে। মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় এ দুটি বই মিলিত হয়েছে তা অবিস্মরণীয়। কথা কবিতা ও সংগীতে জুনায়েদ মুন্সী মনের আনন্দে সরল অভিব্যক্তি প্রকাশের লেখক। এমন মন্তব্য বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে বলেছেন বক্তারা।
পেশায় চিকিৎসক কিন্তু মননে কবি জুনায়েদ মুন্সী’র ‘একুশে কথা বাহান্ন গানে’ ও ‘একাত্তরের ৭১’ কথা ও সংগীতের বই দুটির মোড়ক উন্মোচন হয়েছে শনিবার ( ২০ আগস্ট) সিলেট নগরীর কুমারপাড়াস্থ একটি অভিজাত হোটেল এর কনফারেন্স হলে।
মদন মোহন কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডক্টর আবুল ফতেহ ফাত্তাহ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রবন্ধ উপস্থাপক করেন মঈনুদ্দিন আদর্শ মহিলা কলেজ এর বাংলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান আজির হাসিব। সম্মানীত অতিথি অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক ডাঃ ওছুল আহমদ চৌধুরী, অধ্যাপক জফির সেতু, ডক্টর মোস্তাক আহমদ দীন, গবেষক ও প্রশাসক শিক্ষক মিহির কান্তি চৌধুরী, সুরকার,গীতিকার ও সংগীত পরিচালক বর্ষিয়ান গায়ক হিমাংশু বিশ^াস।
অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ‘একুশে কথা বাহান্ন গানে’ ও ‘একাত্তরের ৭১’ কথা ও সংগীতের লেখক জুনায়েদ মুন্সী।
প্রকাশনা অনুষ্ঠানে ‘একুশে কথা বাহান্ন গানে’ ও ‘একাত্তরের ৭১’ কথা ও সংগীতের বই দুটির আনুষ্ঠানিক মোড়ক উন্মোচন করেন সম্মানীত অতিথিবৃন্দ।
শাবিপ্রবি ইংরেজী বিভাগে ছাত্রী জুমানা হাসান ঐশী পরিচালনায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন রাগীব রাবেয়া মেডিকেল কলেজ এর ভাইস প্রিন্সিপাল প্রফেসর ডাঃ একে এম দাউদ, প্রাক্তন সিভিল সার্জন ডাঃ এম ফয়েজ আহমদ, শাবিপ্রবি সাবেক রেজিস্ট্রার জুবায়ের আহমদ চৌধুরী, অধ্যাপক মোহাম্মদ আলমগীর, অধ্যাপক তোতিউর রহমান, অধ্যাপক প্রণব কান্তি দেব,লেখকের সহধর্মিনী তামান্না আহমেদ লীনা, সিনিয়র সাংবাদিক কবি ও লেখক আব্দুস সবুর মাখন, চৈতন্য প্রকাশনীর কর্ণধার রাজীব চৌধুরী, সম্মিলিত সাংস্কৃতি জোট সিলেট প্রতিনিধি গীতিকার শামসুল আলম সেলিম, ভ্রমণ লেখক কবি আবিদ ফয়সাল, এডভোকেট মির্জা হোসেন, বিশিষ্ট সমাজসেবী মোঃ মাসুদুল হাসান দুলন, কাশমীর রেজা প্রমুখ।

বই দুটির লেখক জুনায়েদ মুন্সী বলেন, আমার বই প্রকাশ করাটা কাকতালীয়। হঠাৎ করেই হয়ে গেছে। এর পেছনে আমার অসম্ভব মেধাসম্পন্ন স্ত্রী তামান্ন আহমেদ লীনা অবদান অনেক বেশি। আমি লেখায় অনুপ্রাণিত হয়েছি মনের আঙ্গিনায় ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে বুকে লালন ও ধারন করে। এর আগে লেখকের শিশু কিশোরের ছড়া, কথা কলি ও সুর এবং রাত্রি নিশীতে ৩টি বই প্রকাশিত হয়েছে। অনুষ্ঠান শেষে লেখকের সংগীতে ও গীতকারে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

shares