বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে জেলা পরিষদের ২য় দিনে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

প্রকাশিত: ৫:৪১ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৬, ২০২২

বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে জেলা পরিষদের ২য় দিনে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ট বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী (মুজিব শতবর্ষ) ও স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে সিলেট জেলা পরিষদের উদ্যোগে ও জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় হার্দিক শ্রদ্ধার্ঘ শতকের শিকড়ে সুবর্ণ স্বাধীনতা ৩ দিন ব্যাপী অনুষ্ঠানের ২য় দিনে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। (১৬ মার্চ) বুধবার সিলেট জেলা স্টেডিয়ামের আউটারে বিকাল ৩টা থেকে দুই সেশনে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

সিলেট জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আমাতুজ জহুরা রওশন জেবীন এর সভাপতিত্বে ও ফাতেহা রশিদ সাবা এবং আবু বক্কর আল-আমীনের যৌথ পরিচালনায় প্রথম অধিবেশনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো: নিশারুল আরিফ বলেন, বঙ্গবন্ধুর তন্ময়া জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সমুদ্র বিজয় অর্জন করা হয়। শুধু তাই নয় সাবমেরিন তৈরি সহ বাংলাদেশের বিভিন্ন উন্নয়মূলক কাজে তিনি অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। তিনি আরো বলেন, সমূদ্র সৈকত আমরা সঠিকভাবে আহরণ করতে পারলে ২০৪১ সালে বাংলাদেশ হবে একটি উন্নত রাষ্ট্র।

২য় অধিবেশন সন্ধ্যায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান হাবিব।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সাবেক সংসদ সদস্য সৈয়দা জৈবুন্নেসা হক, বীর মুক্তিযোদ্ধা বেদানন্দ ভট্টাচার্য, সিলেট জেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মো: জয়নাল আবদীন, সিলেট জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সন্দ্বীপ কুমার সিংহ, কবি ও কলামিস্ট মুজতবা আহমেদ মুরশেদ, সিলেট প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকবাল সিদ্দিকী, সিলেট সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি আমিনুল ইসলাম চৌধুরী লিটন।

২য় অধিবেশন সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় অনুষ্ঠিত হয়। এতে মূখ্য আলোচকের বক্তব্য রাখেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন সিলেট জেলা পরিষদের সদস্য সুষমা সুলতানা রুহি। উল্লেখ্য, উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ২য় দিনের প্রথম অধিবেশন দ্বৈতস্বও, সুরঞ্জনা শিল্পী গোষ্ঠী, জাতীয় রবীন্দ্র সংগীত সমিা¥লন পরিষদ, সিলেট, আবৃত্তি, নৃত্য। দ্বিতীয় অধিবেশনে বঙ্গবন্ধু, ভাষা আন্দোলন ও বাংলাদেশের স্বাধীনতা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সংগীত, আবৃত্তি, বাউল গান, গীতিনৃত্যনাট্য, পরিবেশনা, নাটক অনুষ্ঠিত হয়। বিজ্ঞপ্তি

shares