লয়লা ইসলামিয়া হাফিজিয়া মহিলা মাদ্রাসায় গুণীজন সংবর্ধনা অনুষ্ঠান // গুণীজনদের সম্মান দিলে সমাজে গুণীজনের জন্ম হয় ——————-এম এ কুদ্দুছ

প্রকাশিত: ২:৫৬ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২১, ২০২২

লয়লা ইসলামিয়া হাফিজিয়া মহিলা মাদ্রাসায় গুণীজন সংবর্ধনা অনুষ্ঠান  // গুণীজনদের সম্মান দিলে সমাজে গুণীজনের জন্ম হয় ——————-এম এ কুদ্দুছ

সিলেটের নিউজ টুয়েন্টিফোরঃ
সিলেট সদর জালালাবাদ থানা আওয়ামীলীগের প্রধান উপদেষ্টা, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক ফোরাম কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট, বাংলাদেশ ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান ও লয়লা ইললামিয়া হাফিজিয়া মহিলা মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা ও নাদিরা বেগম ট্রাস্ট এর চেয়ারম্যান যুক্তরাজ্য প্রবাসী স্বনামধন্য লেখক এম এ কুদ্দুছ বলেছেন, যেই সমাজে গুনীজনদেরকে সম্মান জানাতে জানে সেই সমাজে আরো বেশি বড়মাপের গুনীজনের জন্ম হয়। সমাজে অনেক প্রতিভাবান মানুষ নানাভাবে লুকিয়ে আছে। তাদেরকে খুঁেজ বের করে সম্মান জানানো আমাদের অবশ্যই দায়িত্ব। মানবিক গুণাবলির মধ্যে মানুষকে সম্মান প্রদর্শন করা একটি অন্যতম গুণ। সমাজে নিয়মশৃঙ্খলা, প্রেম-প্রীতি ও শ্রদ্ধা-সম্মানের এ মহৎ গুণের উসিলায় শান্তি নেমে আসে সমাজে। ইসলামে তাই অন্যের প্রতি সম্মান প্রদর্শনের ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। সৎ স্বভাব ও সৎ আচরণের মাধ্যমে আমরা এ গুণটি জীবনের প্রতিটি কর্মক্ষেত্রে ফুটিয়ে তুলতে পারি। আমাদের নবী করিম (সা.) বলেছেন, যারা বড়দের শ্রদ্ধা করে না এবং ছোটদের স্নেহ করে না, তারা আমার উম্মত নন। তিনি আরও বলেছেন, যে যুবক কোনো বৃদ্ধের প্রতি তার বার্ধক্যের কারণে সম্মান প্রদর্শন করে, আল্লাহতায়ালা সেই যুবকের শেষ বয়সে তার জন্য সম্মানকারী ব্যক্তি পয়দা করে দেবেন। সম্মান বোধের এ মহান বাণী আমরা মনে রেখে বলতে পারি, প্রত্যেক ব্যক্তির পদমর্যাদা অনুযায়ী মর্যাদা দেয়া, বয়োবৃদ্ধকে পিতার মতো সম্মান দেখানো এবং ছোটদের পুত্রের মতো স্নেহ করা মানবিক মূল্যবোধের পরিচয় বহন করে। এ সম্পর্কে রাসূল (সা.) আরও বলেছেন, ‘তিনটি বিষয় দিয়ে মানুষের পারস্পরিক সম্পর্ক উন্নত ও মজবুত হয়। তাহল কারও সঙ্গে সাক্ষাৎ হলেই সালাম দেবে। মজলিসে এলে বসার স্থান দেবে এবং তিনি যে নামে সম্বোধন করলে খুশি হন, সেই নামে সম্বোধন করবে। তিনি গতকাল বুহস্পতিবার লয়লা ইললামিয়া হাফিজিয়া মহিলা মাদ্রাসার গুণীজন সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
লয়লা ইসলামিয়া হাফিজিয়া মহিলা মাদ্রাসায় মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠা সভাপতি আলহাজ্ব এম এ কুদ্দুস সাহেব, ২ নং চারখাই ইউনিয়ন এর সম্মানিত চেয়ারম্যান জনাব হোসেন মুরাদ চৌধুরী সাহেব এবং মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা হাফিজ উল্লাহ সাহেব এর উপস্থিতিতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেওয়া হয় মধুর চক গ্রামের এর গর্বিত সন্তান লন্ডন প্রবাসী হাফিজ মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম আল মাদানী সাহেব কে।
এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট মুরব্বি সাবেক মেম্বার জনাব নাজিবুল হক আবুল সাহেব,জনাব কামাল উদ্দিন সাহেব, জনাব ছমির উদ্দিন সাহেব, বিশিষ্ট আইনজীবী জনাব কাওছার আহমদ সাহেব প্রমুখ।
পরিশেষে মাদ্রাসার সার্বিক উন্নয়ন কামনা করে মোনাজাত করেন হাফিজ মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম সাহেব। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ